বিস্তারিত আলোচনা করা হল Google Penguin পেনাল্টি নিয়ে

 Google Penguin পেনাল্টি 

২০১২ সালে গুগল অফিশায়ালি এই আপডেটটা পাবলিশ করে। Google এর one of the biggest পেনাল্টি হচ্ছে পেঙ্গুইন।
 biggest পেনাল্টি হচ্ছে পেঙ্গুইন
প্রথম দিকে ওয়েবসাইট owner রা এই আপডেটটাকে তেমন পাত্তা না দিলেও যখন গুগল একদিক থেকে বেশীবুজা সবগুলা ওয়েবসাইটকে সাইজ করতে থাকে তখন তাদের টনক নড়ে।

এখন তো এটা খুবই কমন একটি ব্যপার । আমরা তখন থেকেই  এসইও ওয়ার্কাররা বিষয়টাকে খুব গুরুত্বের সাথে দেখি।

একটি ওয়েবসাইটকে যে যে কারনে গুগল এই পেনাল্টি দেয় ও আমাদের করনীয়ঃ
একটি ওয়েবসাইট পেঙ্গুইন পেনাল্টির আওতায় পরে যে কারনে মূলত স্পামি,যত্রতত্র,অস্বাভাবিক,ইররিলেভেন্ট ব্যাকলিঙ্ক করার জন্য।


গুগল এই পেনাল্টি দেয়
যেমনঃ
1) স্পামি ওয়েবসাইট থেকে ব্যাকলিঙ্ক নিয়ে আসাঃ
স্পামি ওয়েবসাইট থেকে ব্যাকলিঙ্ক
কিছু কিছু ওয়েবসাইট আছে দেখবেন যারা মানুষকে শুধু লিঙ্ক দেয়।তাদের না আছে কোন আর্টিকেল না আছে গুগল এর কাছে কোন value।কাজের কাজ কিছুই না মানুষকে শুধু আজাইরা লিঙ্ক দেওয়া।এই রকম ওয়েবসাইট থেকে ব্যাকলিঙ্ক নিয়ে আসলে এই পেঙ্গুইন পেনাল্টি খাবেন।
2) ইররিলেভেন্ট ব্যাকলিঙ্ক বিল্ড-আপ করাঃ
ইররিলেভেন্ট ব্যাকলিঙ্ক
আপনার ওয়েবসাইট দেখা গেলো টেকনোজিকাল আর আপনি ব্যাকলিঙ্ক নিয়ে আসলেন কোন স্পোর্টস ওয়েবসাইট থেকে।এইটা কোন কিছু হইলো।কার সাথে কী!এই রকম অসঙ্গতিপূর্ন ব্যাকলিঙ্ক নিয়ে আসলে গুগল আপনাকে পেঙ্গুইন পেনাল্টি দিবে।সব সময় সিমিলার ওয়েবসাইট থেকে ব্যাকলিঙ্ক নিয়ে আসবেন।
কীভাবে ব্যাকলিঙ্ক আনার জন্য সিমিলার ওয়েবসাইট খুজে পাবেন সেটা নিয়ে এই লেখাটি আশা করি আপনার খুব কাজে দিবে।

3) অস্বাভাবিকভাবে ব্যাকলিঙ্ক করাঃ
ধরেন আপনার ওয়েবসাইটের ইতিপূর্বে ব্যাকলিঙ্ক ছিল ৪০ টি।
আপনি কী করলেন,আজকে একদিনেই আরো ৫০ টি ব্যাকলিঙ্ক করলেন।আর আগামী ০৭ দিন আপনার কোন খবর নাই।
তারপরে ০৭ দিন পরে উড়াল দিয়ে এসে একদিনেই আবার ৫০ টি ব্যাকলিঙ্ক করলেন।
এটা কী এসইও ফ্রেন্ডলী হলো?মোটেও না।
এইভাবে কখনোই ব্যাকলিঙ্ক তৈরী করা যাবে না।করলে পেনাল্টি খাবেন।সবসময় একটা রোটিন ফলো করে রেগুলার ব্যাকলিঙ্ক করবেন আর সেটা দিন কে দিন বৃদ্বি করবেন।

4) সব জায়গায় একই এঙ্কর-টেক্সট ব্যবহার করবেন না
একই এঙ্কর-টেক্সট ব্যবহার করবেন না
আপনি যখন ব্যকলিঙ্ক নিয়ে আসবেন তখন একেক লিঙ্ক এর জন্য একেক এঙ্কর-টেক্সট ব্যবহার করবেন।কখোনই একটার পর একটা ব্যাকলিঙ্কের জন্য একই এঙ্কর টেক্সট ব্যবহার করবেন না।
আপনার কী-ওয়ার্ড যদি হয় Best web hosting in Bangladesh।তাহলে একবার Best web hosting in Bangladesh আবার Provide Best web hosting in Bangladesh আবার Get Best web hosting in Bangladesh মানে একেক সময় একেক কী-ওয়ার্ড এঙ্কর-টেক্সট হিসাবে ব্যবহার করবেন।কী-ওয়ার্ডে আগে পরে কিছু যোগ করে দিবেন।
যদি এরকম একই এঙ্কর-টেক্সট একের পর এক ব্যবহার করেন তাহলে এই পেনাল্টি খাবেন।সবসময় টেকনিকালী এঙ্কর টেক্সট ব্যবহার করবেন
5) পিবিএনঃ
প্রাইভেট ব্লগিং নেটওয়ার্ক।নতুন-পুরাতন সবাই এটার সাথে নিশ্চইয়ই পরিচিত।
তারপরেও যারা জানেন না তারা আগে আমাদের এই আর্টিকেলটি পড়ে আসুন।
এই পিবিএন এর মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটের জন্য ব্যাকলিঙ্ক তৈরী করলে আর সেটা যদি যত্রতত্র-অগোছালো তাহলে এই পেনাল্টির আওতায় পরতে বেশিদিন লাগবে না।
আমি আপনাকে পিবিএন করার জন্য একেবারে নিষেধ করছি না।আপনি আজকে মাত্র তৈরী করলেন আর কালকে থেকেই লিঙ্ক আনা শুরু করলেন যেখানে আপনার মেইন ওয়েবসাইটটাও নিউ কিংবা ব্যাকলিঙ্ক এ নিউ।এটা করা যাবে না।
আপনার প্রাইবেট ব্লগটা অব্যশ্যই পুরাতন ও বিশ্বস্ত হতে হবে
Then,আপনি সেখান থেকে ব্যাকলিঙ্ক আনার সময় আপনার ওয়েবসাইটের পাশাপাশি ফেসবুক,ওকিপিডিয়া,ইউটিউব কিংবা রিলেভেন্ট ভালো কোন সাইটকেও লিঙ্ক দিবেন।
দেখা গেল ১০০০-১৫০০ ওয়ার্ডের একটা আর্টিকেল এ ০৫টা লিঙ্ক দিলেন সেখানে একটা আপনার আর বাকিগুলা ফেসবুক,ইউটিউব,ওকিপিডিয়া কিংবা ভালো রিলেভেন্ট কোন ওয়েবসাইটের।এতে করে বিষয়টা ন্যাচারাল হবে।

Note: এসইও এক্সপার্টরা সবসময় সাজেস্ট করে পিবিএন না করার জন্য।আমি নিজেও সবসময় পিবিএন থেকে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করার চেস্টা করি।কারন,কয়টা লিঙ্কের থেকে একটা পেনাল্টি থেকে সেভ থাকাটা অনেক বড় ব্যপার। তারপরেও সিদ্বান্তটা আপনার উপর।

যাইহোক-
যদি এই পেঙ্গুইন পেনাল্টি খাওয়ার পর বুজতে পারেন এর পিছনে পিবিএন করাটাও একটা কারন তাহলে দেরি না করে সাথে সাথে সব পিবিএন থেকে লিঙ্ক রিমোভ করে দিন।
আর গুগলের ধরার যদি ইচ্ছা থাকে,তবে ধরার অনেক ওয়ে আছে।
6) পেইড লিঙ্কঃ
গুগলের ধরার যদি ইচ্ছা থাকে
অনেক ওয়েবসাইট টাকার বিনিময়ে ব্যাকলিঙ্ক প্রোভাইড করে।বিশেষ করে ডাইরেক্টরী ওয়েবসাইটগুলা।যদি এই টাকা দিয়ে ব্যাকলিঙ্ক নিয়ে আসেন আর গুগল সেটা ধরতে পারে তাহলে কিন্তু আপনি গেলেন!!
যদি একান্তই প্রয়োজন হয় তাহলে আপনি নিজস্ব মেইল ব্যবহার করে খুবই সতর্কতার সাথে দু-একটা আনতে পারেন।কোন ক্রমেই এসব কাজে জিমেইল ব্যবহার করবেন না।
মনে রাখবেন,গুগল এর রোবটগুলা এখন আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্ট সমৃদ্ব।এরা ক্ষেত্র বিশেষে আপনার আমার থেকেও বুদ্বিমান।ফাকি দেওয়া প্রায় অসম্ভব।
আর টাকা দিয়ে ব্যকলিঙ্ক আনার দরকারটা কী?
এমনিই কত-শত ওয়ে পইড়া আছে ব্যাকলিঙ্ক আনার জন্য।
ব্যাকলিঙ্ক আনার ওয়েগুলা নিয়ে সাজানো হয়েছে আমাদের এই লেখাটি পড়তে পারেন।

সবইতো বুজলাম।যদি পেঙ্গুইন পেনাল্টি খেয়েই যায়।যেটা বুজব কেমনে?
পেঙ্গুইন পেনাল্টি
নিচের আর্টিকেলটি পড়ে নিন-

এখন বুজলাম আমার ওয়েবসাইটটি পেঙ্গুইন পেনাল্টি খেয়েছে।সেটা এখন রিকোবার করার উপায়?
পেঙ্গুইন পেনাল্টি রিকোবার করাটা যদিও একটু ধৈর্য্যর ব্যাপার তবে খুবই সহজ।
আপনি আগে আপনার ওয়েবসাইটের যাবতীয় ব্যাকলিঙ্কগুলা চেক করুন।এটা আপনি সরাসরি ওয়েবমাস্টার থেকে করতে পারেন।
Search analytics থেকে Links to your site এ ক্লিক করুন।তাই আপনার ব্যাকলিঙ্ক গুলা চেক করতে পারবেন।যেহেতু ওয়েবমাস্টার এ সবলিঙ্ক কাউন্ট হয় না বা হতে একটু সময় লাগে তাই আপনি এখানে সব ব্যাকলিঙ্ক দেখতে পাবেন না।
এজন্য ব্যকলিঙ্ক চেক করার বিভিন্ন টুল ইউস করতে পারেন।
টুলগুলা কিছু আছে ফ্রি কিছু আছে পেইড।তবে আপনার যদি Ahref বা Semrush পেইড একাউন্ট থাকে তবে সেটাই ইউস করুন।
না হলে ফ্রিতে চমতকার একটি টুলস আছে এই কাজটি করার জন্য।যদিও ১০০% ফলাফল পাওয়া যায় না।তবে যা পাওয়া যায় যথেস্ট।
টুলটির নাম backlinkwatch।  দারুন একটি ফ্রি টুল
backlinkwatch থেকে আপনি প্রত্যেকটা লিঙ্কে গিয়ে গিয়ে চেক করুন।দেখুন কোনটা আপনার স্পেমী বা আপনার ক্ষতির কারন আর কোনটা ভালো।
ভালোগুলা একটা এক্সেল ফাইল এ নোট করুন আর খারাপগুলা একটা এক্সেলফাইল এ নোট করুন।
এবার খারাপগুলা রিমোভ করার জন্য কাজে লেগে যান।
রিমোভ করার জন্য কাজে লেগে যান।
সেটা কেমনে?
মূলত আপনি ০২ভাবে করতে পারবেনঃ
 ন্যাচারাল পদ্বতিতে
 মেন্যুয়ালী সাবমিটের মাধ্যমে

ন্যাচারাল পদ্বতিঃ
যে যে ওয়েবসাইট থেকে খারাপ ব্যাকলিঙ্ক পেয়েছে সেই ওয়েবসাইটের Admin কে ইমেইল কিংবা ফেসবুকে একটা ম্যাসেজ করুন।ধরুন আপনি আমাদের skill71 ওয়েবসাইটে একটি স্পেমি কমেন্ট ব্যকলিঙ্ক করেছেন।এখন সেটি রিমোভ করতে হবে।
তাহলে আমাকে ম্যাসেজ করার সিস্টেমটা হবে এইরকমঃ
Dear Md hafiz.
Thank you for creating such an informative website. I’ve got a lot of benefits to the content of your website and try to read regularly.recently I made comment with my website URL in your blog page
যেখান থেকে লিঙ্ক পেয়েছেন সেটার URL দিয়ে দিবেন।
But Unfortunately, Google counted my comment backlink as bad for my website. I requested you, please delete my comment from your website for saving me from a penalty.
Here is your post where I commented: যেখানে পোস্ট করেছেন সেই পোস্টের লিঙ্ক দিবেন।
Here is the link to remove: 
-এঙ্কর-টেক্সট দিবেন,সেই লিঙ্ক দিবেন
If you need any more information please let me know-
Yours regards-
Atikur Ajad (আপনার নাম)
Owner of-
Example.com(আপনার ওয়েবসাইটের নাম)
Email- admin@example.com
অব্যশ্যই আপনার ওয়েবসাইটের অফিশিয়াল মেইল এড্রেস ব্যবহার করবেন।না হলে সেটা কিন্তু ট্রাস্টেড নাও হতে পারে।
এটা ছিল just একটা স্যাম্পল।আপনি আপনার মতো করে আরো ভালোভাবে সাজিয়ে গুজিয়ে লিখবেন।আমি কমেন্ট ব্যাকলিঙ্ক রিমোভ করার রিকোয়েষ্ট করেছি। আপনি যদি গেষ্ট পোস্ট বা অন্য কোন ব্যাকলিঙ্ক রিমোভ করার রিকোয়েষ্ট করেন তাহলে সেটা সেইভাবেই লিখবেন।
এইভাবে লিখে যদি সাবমিট করেন তাহলে ইংশাল্লাহ ৩-১০ দিনের মধ্যে একটা রিপ্লে পাবেন।
কারন,একজন ওয়েবসাইট Owner তার ওয়েবের অফিশিয়াল মেইলগুলা নিয়মিত চেক করেন।আপনি তার একজন ভিজিটর আর তার বিজনেস ভালোভাবে রান করার জন্য ভিজিটরদের সাথে কমিউনিকেশন টা খুব ভালো রাখা যেহেতু একটা অত্যাবশ্যক ব্যাপার,সেজন্য হলেও সে আপনাকে একটা ভেল্যু দিবে ইংশাল্লাহ।
মেন্যুয়ালী পদ্বতিতেঃ
মেন্যুয়ালী পদ্বতি নিয়ে আমরা আলাদা একটা কন্টেন্ট তৈরী করেছি।এই মেন্যুয়ালী পদ্বতি ব্যবহার করে আপনি খুব সহজেই স্পামী ব্যাকলিঙ্কগুলা রিমুভ করতে পারবেন।রীতিমতো ম্যাজিকের মতো কাজ করে।এসইও মহলে এটি Disavow Backlink tool নামে পরিচিত যেটি গুগল এরই একটি নিজস্ব টুল

স্প্যামী ওয়েবসাইটের Admin দের ম্যসেজ না হয় করলাম।তারা আমাকে রিপ্লেপূর্বক সবগুলা লিঙ্ক রিমোভ করে দিল।এখন কি আমার ওয়েবসাইটটি পেনাল্টিমুক্ত হয়ে যাবে।

গুগল সধারনত প্রতি মাসে মাসেই তার Algorithm আপডেট করে।পরবর্তী আপডেট এ যখন দেখবে,এখন আর কোন সমস্যা নেই,তখন কেন রাঙ্ক করবে না?
ইংশাল্লাহ অব্যশ্যই রাঙ্ক করবে,যদি আপনি স্পামী লিঙ্কগুলো রিমোভ করতে পারেন।

মনে হয় গুগল পেঙ্গুইন পেনাল্টি নিয়ে আর তেমন কিছু জানার বাকি নেই।তাই লেখাটি আপাদত এখানেই শেষ করছি।

Post a Comment

0 Comments